মহামারি গাঁথা – জীবনসঙ্গী হারানো বৃদ্ধদের স্বরণে

মহামারি গাঁথা – জীবনসঙ্গী হারানো বৃদ্ধদের স্বরণে

ডা: ইশরাত সুলতানা / বগুড়া ট্রিবিউন

সিঞ্চিত তরলে গড়ল নেমেছে ধরায়,
বৃদ্ধের বুকে আগুন লেগেছে,
ধরণী পুড়ছে খরায়।
নিথর নিবিড় আলিঙ্গনে
বধূ ছেড়েছে ঘর,
চুন সুরকির প্রিয় ঘরখানা,
হয়ে গেছে যেন পর।
মধ্যশ্রাবনে মেহগনি তলা
সেজেছে বাঁশের ডালে,
হৃদয় ভাঙ্গা মেঘমালা আজ
ঝরে ঝরে যেন পরে।

প্রিয়তমা

ভালো থেকো, প্রিয়তমা।
তুমি তো জানো না,
প্রিয় কথাগুলো বহুদিন ধরে
না বলে বলে, পাথর হয়ে গেছে।
আহ্! বুকে যেন তীর এসে বিঁধে!
কে যেন বলল,
“একটু ধরেন,লাশ তুলে দেন।”
লাশ হয়ে গেছ, প্রিয়তমা!
না,আমি পারি না,
এ নিথর দেহ আমি
স্পর্শ করতে পারিনা।
তের বছরের শ্যামলা বধূ,
ঘরে এনেছি যাকে,
প্রিয় আবেশে ভালোবেসে বেসে,
ছুঁয়েছি বড় আবেগে।
আমি পারিনা,
নিষ্প্রাণ এই ছোঁয়া,
মনে রেখে দিয়ে,
বেঁচে থেকে মরে যেতে।

কে যেন বলল,
“ধোয়ানো শেষ,
শেষ দেখা দেখে নেন, কাকা।”
না, না, না,না।
আমি দেখতে চাই না।
আমার বালিকা বধূ,
চোখের সামনে,আমার এ উঠানে
কাজল চোখে, আলতা পায়ে,
নুপুর পরেছে,
লাল ফিতার দিনগুলো তার
বয়ে বয়ে কবে সাদা হয়ে গেছে!
না, না, না, না।
আমি এ সুরমা পরা,
ফ্যাকাসে মুখের মৃদু হাস্য,
দেখতে চাই না।

কবরে নামতে হবে!
মাফ করে দাও,
আমি পারি না,কিছুতেই না।
এখানে অন্ধকার,
ভ্যাপসা গরম,নির্জনতা।
আমি তাকে নিজ হাতে
এভাবে এখানে রেখে যেতে পারি না।
অনুভবে দেবী সে,
সে আমার, প্রিয়তমা!


ডা: ইশরাত সুলতানা / বগুড়া ট্রিবিউন

খবরটি শেয়ার করুন...

Comments are closed.




© All rights reserved © 2018-20 boguratribune.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com