সেবা প্রত্যাশী নাগরীকদের পাশে আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, বগুড়া

সেবা প্রত্যাশী নাগরীকদের পাশে আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, বগুড়া

আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, বগুড়া

পাসপোর্ট সেবা পেতে পাসপোর্ট অফিসগুলোতে নাগরিকদের হয়রানি ও ভোগান্তির অভিযোগ দীর্ঘদিনের। পাসপোর্ট সেবা পেতে নাগরিকদের এই হয়রানি কমিয়ে আনতে চেষ্টা করে যাচ্ছে আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, বগুড়া।

মোহাঃ আজমল কবির

পাসপোর্ট সেবা প্রত্যাশী নাগরীকগণ বিশেষ সমস্যার সম্মুখীন হলে তাঁদের পাসপোর্ট সংক্রান্ত জটিলতার সকল বিষয় জেনে নাগরিকদের দ্রুত সমাধান ও সু’পরামর্শ প্রদান করছেন আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, বগুড়ার সহকারী পরিচালক জনাব মোহাঃ আজমল কবির

আলোচিত গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব নাভিদ ইবনে সাজিদ পরিচয় গোপন রেখে আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, বগুড়া পরিদর্শন করেন এবং সার্বিক বিষয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে এই প্রতিবেদককে জানান,

“ব্যক্তিগত পাসপোর্ট নবায়নের কাজে পাসপোর্ট অফিসে যেয়ে সহকারী পরিচালক সাহেবের কক্ষে যেতেই খেয়াল করলাম সেখানে বেশ কয়েকজন সাধারণ নাগরিকগণ তাঁদের পাসপোর্ট সংক্রান্ত সমস্যা নিয়ে সরাসরি পাসপোর্ট অফিসের প্রধান কর্মকর্তার সঙ্গে আলোচনা করছেন এবং তাঁরা তাঁদের সমস্যার সমাধান ও সুপারমর্শ পাচ্ছেন। আমাদের রাষ্ট্র নাগরিকদের টাকায় পরিচালিত হলেও এই নাগরিকগণ রাষ্ট্রীয় সেবা পেতে সমস্যা হলে সমাধানের জন্য তাঁরা সচরাচর উচ্চপদস্থ কর্মকতাদের আশেপাশেও ঘেঁসতে পারেন না। আমি লক্ষ করলাম জনাব আজমল কবির এই পাসপোর্ট অফিসের অফিস প্রধান হলেও পাসপোর্ট সেবাপ্রার্থী নাগরিকগণ সেবা সংক্রান্ত সমস্যা তাঁকে অবগত করতে কোনো বাধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে না এবং তাঁর কক্ষে সেবাপ্রর্থী নাগরিকদের অবাধ বিচরণ এবং নাগরিকদের সঙ্গে তাঁর প্রাণোজ্বল আচরণ আমাকে মুগ্ধ করেছে।”

আমাদের দেশের নাগরিকগণ রাষ্ট্রীয় সেবা পেতে অনেক রকম হয়রানির শিকার হন এবং নাগরিকদের জরুরী প্রয়োজনকে পুঁজি করে বিভিন্নভাবে ফুলে ফেঁপে উঠছেন রাষ্ট্রের অনেকেই। জাতির জনকের দেখানো পদচিহ্ন নূণ্যতম অনুসরণ করতে পারলে এখানে পরিবর্তন ঘটবে এবং তা আজমল কবিরের মতো জনবান্ধব কর্মকর্তাদের মাধ্যমেই ঘটবে বলে আমি আশা করি।

বাংলাদেশের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর প্রকম্পমান কন্ঠে আদেশ করে বলেছিলেন “আপনার মাইনা দেয় ওই গরিব কৃষক। আপনার সংসার চলে ওই টাকায়। আমরা গাড়ি চড়ি ওই টাকায়। ওদের সম্মান করে কথা বলুন, ইজ্জত করে কথা বলুন।”
বাংলাদেশের কয়জন সরকারি কর্মকর্তা জাতির জনকের এই আদেশ অনুসরণ করেন আমার সন্দেহ আছে। আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, বগুড়ার সহকারী পরিচালক জনাব আজমল কবির জাতির জনকের উক্ত আদেশ তাঁর কর্মে প্রতিফলনের চেস্টা করে যাচ্ছেন অন্তত: তার এই চেস্টাকে আমি সাধুবাদ জানাতে চাই এবং আমি আশা করি তিনি তাঁর এই চেস্টা অব্যহত রাখবেন।

খবরটি শেয়ার করুন...

Comments are closed.




© All rights reserved © 2018-20 boguratribune.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com