আলোকবর্তিকার বাহক ড. মাসুমুর রহমান

আলোকবর্তিকার বাহক ড. মাসুমুর রহমান

ড. মো: মাসুমুর রহমান

বগুড়ার আলোকিত সন্তান ড. মো: মাসুমুর রহমান। বাংলাদেশের হয়ে বিশ্ব দরবারে বহন করে চলেছেন আলোকবর্তিকা। বগুড়া ট্রিবিউন তাঁকে নিয়ে পূর্বে প্রতিবেদন প্রকাশের পর তিনি বারবার’ই বগুড়া ট্রিবিউনকে নিজের প্রচার সম্পর্কে অনাগ্রহ জানিয়েছেন। ড. মাসুমুর রহমান নিজের কৃতিত্বকে, নিজেকে সহজে ভুলে থাকেন এবং এই কারণেই আমরা তাঁকে ভুলতে পারি না। সবার পিছনে তিনি নিজেকে গোপনে রাখেন এবং বগুড়া ট্রিবিউন এই মহৎ ব্যক্তিকে সবার সামনে প্রকাশ করতে চায়। ড. মাসুমুর কখনোই ছোটকে ছোট মনে করেন না, চিরঅনাদৃত জনও বঞ্চিত হয় না তাঁর আদর থেকে। অথচ তিনি নিজের জন্য একটুও প্রীতি দাবি করেন না। মূলতই এমন একজন মহান মানুষকে প্রকাশ করে বগুড়া ট্রিবিউন নিজেকে ধন্য মনে করছে।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর লিখেছিলেন—

আপনারে তুমি সহজে ভুলিয়া থাক,
আমরা তোমারে ভুলিতে পারি না তাই।
সবার পিছনে নিজেরে গোপনে রাখ,
আমরা তোমারে প্রকাশ করিতে চাই।
ছোটোরে কখনো ছোট নাহি কর মনে,
আদর করিতে জান অনাদৃত জনে,
প্রীতি তব কিছু না চাহে নিজের জন্য,
তোমারে আদরি আপনারে করি ধন্য।

বিশ্বকবির কবিতাটির মূর্ত প্রতীক যেন ড. মো: মাসুমুর রহমান।

ড. মো: মাসুমুর রহমান, শ্রীলঙ্কার কলোম্বোতে অবস্থিত দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক সংস্থা সাউথ এশিয়া কো-অপারেটিভ এনভায়রনমেন্ট প্রোগ্রাম (সাকেপ) এর প্রথমবারের মত বাংলাদেশের পক্ষে মহাপরিচালক ( Director General, South Asia Co-operative Environment Programme – SACEP ) নিযুক্ত হয়েছেন তিনি।

ড. মো: মাসুমুর রহমান

১৭ তম বিসিএস পরীক্ষার মাধ্যমে তিনি বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (প্রশাসন) ক্যাডারে যোগদান করেন। তাঁর কর্মজীবনে তিনি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে বাংলাদেশ সরকারের যুগ্মসচিব, পটুয়াখালী জেলার জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (ডিসিডিএম), পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রীর একান্ত সচিব, মাননীয় খাদ্য ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রীর একান্ত সচিব হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট, সহকারী কমিশনার, সিনিয়র সহকারী কমিশনার, জেলা প্রশাসক (রাজস্ব), সহকারী কমিশনার (ভূমি), উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) এবং বাংলাদেশ সচিবালয়ে তিনি বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে উপসচিব ও সিনিয়র সহকারী সচিব হিসাবেও কাজ করেছেন।

মাঠ প্রশাসনে কাজ করার সময় তিনি সরকারের সিদ্ধান্ত সফলভাবে বাস্তবায়নে প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করেছিলেন। বিশেষত ডিসিডিএম হিসাবে তিনি “বৃক্ষরোপণে প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার-২০১৩” পুরষ্কার অর্জন করেছেন।

ড. মো: মাসুমুর রহমান বগুড়া জেলার গাবতলী উপজেলায় সুখান’পুকুর এলাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর শিক্ষাজীবনে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমআরইউ) থেকে কৃষিবিদ্যা ও পরিবেশ বিষয়ে পিএইচডি ডিগ্রী অর্জন করেন। তাঁর গবেষণার শিরোনাম ছিল ‘বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলে গম উত্পাদনে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব’। তিনি ডাবল মাস্টার্স প্রোগ্রাম করেন, একটি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমআরইউ) থেকে ‘ কৃষি বনায়ন এবং পরিবেশ’ বিষয়ে এবং অন্যটি ‘সরকার ও রাজনীতিতে’ বাংলাদেশের এশিয়ান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। এর আগে তিনি শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কৃষিবিদ্যায় স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেছেন।

তিনি বিভিন্ন দেশ সফর করেছেন, যেমন : যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, ইতালি, জাপান, জার্মান, স্পেন, ফ্রান্স, অস্ট্রিয়া, চেক রিপাবলিক, শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ, থাইল্যান্ড, ভারত, নেপাল, ইন্দোনেশিয়া, চীন, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, ফিলিপাইন, মরক্কো প্রভৃতি এবং তিনি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ আন্তর্জাতিক সম্মেলন, প্রশিক্ষণ, সভা, কর্মশালা এবং সেমিনারে অংশ গ্রহণ করেছিলেন।

বাগেরহাটের রামপালে ইউএনও হিসাবে মাঠ প্রশাসনে কাজ করার সময় সিডর ঘূর্ণিঝড়ে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থদের পুনর্বাসন ও স্বাভাবিক জীবন ফিরে আসার জরুরী প্রতিক্রিয়া পরিচালনা করার জন্য সমন্বয় করতে গুরুত্বপূর্ণ এবং উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছিলেন।

মন্ত্রণালয়ে কাজ করার সময় তিনি বাংলাদেশে বিভিন্ন বিদেশী মিশন এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার যেমন, এফএও, ডাব্লুএফপি, ইউএসএআইডি, সিডিএমপি, ইউএনডিপি, ডব্লিউবি, জাইকা, এডিবি, ইউএনইপি, ইউএনএফসিসি প্রভৃতির সাথে রাষ্ট্রের সুষম মৈত্রী স্থাপন করেছিলেন।

বগুড়া থেকে একটি বর্তিকায় আলোক বহন করে চলেছেন ড. মো: মাসুমুর রহমান, সেই আলো যেন তিনি পৌছে দিচ্ছেন সবখানে। চির-অম্লান থাকুক এই বর্তিকার আলো, ভাষ্কর হোক তাঁর আলোকময় পদচিহ্ন।


নাভিদ ইবনে সাজিদ নির্জন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক, বগুড়া ট্রিবিউন ডট কম

খবরটি শেয়ার করুন...

Comments are closed.




© All rights reserved © 2018-20 boguratribune.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com