বাড়বে ও কমবে যেসব পণ্যের দাম

বাড়বে ও কমবে যেসব পণ্যের দাম

দেশিয় শিল্পের বিকাশে বাজেটে বিভিন্ন ধরণের পণ্যে বাড়ানো হয়েছে আমদানি শুল্ক। ফলে আমদানি করা বিভিন্ন ধরনের পণ্যের দাম বাড়বে। অন্যদিকে, দেশে উৎপাদিত বেশ কিছু পণ্যে কর অব্যাহতি দেয়ায় কিছু কিছু পণ্যের দাম কমবে।

রাজস্ব আয় বৃদ্ধি, সাধারণ মানুষকে এবং দেশীয় শিল্পকে সুরক্ষা দিতে বাজেটে কিছু পণ্য শুল্ক বাড়ানো হয়েছে, আবার কিছু পণ্যে কমানো হয়েছে। তাই বাজেটের প্রস্তাব কার্যকর হলে কিছু পণ্যের দাম বাড়ছে, আর কিছু পন্যের দাম কমবে।

নগরীতে অসহনীয় যানজটে কম সময়ে দ্রুত যাতায়াতের জনপ্রিয় মাধ্যম মোটর সাইকেল। যা মোটর সাইকেলে কিনতে যাচ্ছে তাদের জন্য বাজেটে আছে সুসংবাদ। কারণ শুল্ক সুবিধা দেয়ায় দেশে উৎপাদিত মোটরসাইকেলের দাম কমবে।

যারা আইসক্রিম খেতে পছন্দ করেন তাদেরকে গুণতে হবে বাড়তি মূল্য। কেননা, ৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক বসানোর প্রস্তাব করা হয়েছে আইসক্রিমে।

বিদেশ থেকে স্বর্ণ আনার ক্ষেত্রে আগামী ২০১৯-২০ অর্থবছর থেকে বাড়তি সুবিধা পাবেন যাত্রীরা। বর্তমানে প্রতি ভরি স্বর্ণ আনার ক্ষেত্রে ৩ হাজার টাকা শুল্ক দিতে হয়। আগামী অর্থবছরে এটি ভরিপ্রতি ২ হাজার টাকা করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

এবারের বাজেটে স্মার্টফোনের আমদানি শুল্ক বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। বর্তমানে স্মার্টফোন আমদানি শুল্ক ১০ শতাংশ, যা বাজেটে ২৫ শতাংশ পর্যন্ত বাড়ানোর সুপারিশ করা হয়েছে। এতে স্মার্টফোনের দাম বেড়ে যাবে।

অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থায় ব্যবহৃত উপকরণের শুল্ক কমানো হয়েছে। কারণ এসব উপকরণে শুল্ক ২৫ ভাগ থেকে কমিয়ে ৫ ভাগ করা হয়েছে।

যানযট নিরসন ও গণ পরিবহন ব্যবস্থায় শৃঙ্খলা আনতে ব্যক্তিগত গাড়ির ব্যবহার নিরুৎসাহিত করতে চায় সরকার। এজন্য, ব্যক্তিগত গাড়ির নিবন্ধন, রুট পারমিট, ফিটনেস সনদ, মালিকানা গ্রহণ ও নবায়নে ১০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ করেছে।

পাউরুটি, বনরুটি, হাতে তৈরি কেক প্রতি কেজি ১৫০ টাকা পর্যন্ত মূসক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

বাজেটে মোবাইল ফোন ব্যবহারের ওপর আরও ৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে মোবাইল ফোনে কথা বলায় খরচ বাড়বে।
আমদানি করা ফিচার ফোন অপেক্ষাকৃত নিম্ন আয়ের মানুষ ব্যবহার করেন। তাই বিদ্যমান ১০ ভাগ আমদানি শুল্ক অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। ফলে কম দামে ফিচার ফোন কিনতে পারবেন নিম্ন আয়ের মানুষ।

২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে সিগারেটসহ সব তামাকজাত পণ্যের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। এ অনুসারে প্রতি শলাকা সিগারেটের সর্বোচ্চ মূল্য দাঁড়াচ্ছে ১২ টাকা ৩০ পয়সা এবং সর্বনিম্ন ৩ টাকা ৭০ পয়সা।

এবারের বাজেটে রেফ্রিজারেটর তৈরির বিভিন্ন কারখানায় আমদানি করা বিভিন্ন উপকরণে ৫ থেকে ১০ ভাগ শুল্ক কমানো হয়েছে। ফলে কমতে পারে রেফ্রিজারেটরের দাম।

খবরটি শেয়ার করুন...

Comments are closed.




© All rights reserved © 2018-20 boguratribune.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com